মুগ্ধতা.কম

৩০ এপ্রিল, ২০২০ , ৬:২৭ অপরাহ্ণ ; 705 Views

মাহে রমাযান তাক্বওয়ার মাস: ঘরোয়া কাজে স্ত্রীকে  সহায়তা করুন 

মাহে রমাযান তাক্বওয়ার মাস ঘরোয়া কাজে স্ত্রীকে  সহায়তা করুন 

এবারের রমাযান অন্যান্য রমাযান হতে ভিন্ন। অলস সময় কাটতে কাটতে কেমন যেন খুঁতখুঁতে ভাব চলে আসছে। অনেকে কর্ম জীবনের ব্যস্ততার কথা বলে আগে কখনো পরিবারকে সহযোগিতা করার ফুরসত পায়নি। বাসায় যখন আসতো অভিব্যক্তি দেখে মনে হতো সারাটা দিন কতইনা ব্যস্ততায় বেচারা সময়টা পার করেছে। ভাবে মনে হতো বাইরে কাজ না থাকলে বাসায় তিন ঘন্টার কাজ এক ঘন্টায় সামাল দিবে । ঘরের লোকও এবার বড্ড খুশি। এবার করোনা- লক ডাউনের অসিলায় কিছুটা সহায়তা পাব।

কিন্তু বাস্তবতার মুখ দর্শন সব আশার কি আর তকদিরে জুটে! লক ডাউনের সুবাদে এবার হাঁড়ির ঢাকনা খুলে গেছে। সব লাপাত্তা। উল্টা এক বিছানা বেচারি স্ত্রীকে  কয়েক বার ঠিক করতে হয়!

শ্বশুরের আদুরে মেয়েটাকে বশে আনার জন্যে  বিয়ের আগে কতইনা মুখরোচক বুলি আওড়াতো। হবু বউ কোন এক মূহুর্তে বাবার আদুরে সেজে বলত: ‘আমি কিন্তু রান্না- বান্না পারিনা’। আর তিনি বলতেন: ‘কোন সমস্যা নেই আমি সব পারি অথবা দুজনে মিলে করব।’ এখন বাস্তব জীবনে আসার পরে অতীতের মেকাপ করা কথার বিশ্বাসী, বোকা মেয়েটি পিয়াজের ঝাঁজে নাক আর চোখের পানিতে ঝাঁজড়া হয়ে নিরুপায় হয়ে বলে: ‘একটু খাবারটা ডাইনিংয়ে নিয়ে আসোতো’।

তৎক্ষণাত ওই জীবন-সংগী( ! )নামের  ফেবুপাগল কঠিন পদার্থ থেকে যে আওয়াজটি ধ্বনিত হয় : ‘কমন সেন্স্ বলতে কিছুই নেই, সবেমাত্র অফিস থেকে আসলাম’। আরো কত কী । বেচারি কি আর করবে, এই অভিজ্ঞতা তো আর কাজে লাগানো যায় না । নির্জনে নিভৃতে বোবা কান্নায়  চোখের পানি শুকিয়ে ফেলে । এদিকে আল্লাহর আরশ থরথর করে কাঁপতে থাকে । এভাবেই পরিবারে নিমে আসে আসমানি মুসিবত। কারণ জুলুম আল্লাহ সহ্য করতে পারেন না।

ইসলামে রান্নার দায়িত্বটা কিন্তু স্বামীরই। স্ত্রী থাকতে পারেন সহায়তার ভুমিকায় । স্ত্রীর ঘাড়ে চাপিয়ে দিয়ে, পান থেকে চুন খসলেই রাগ। উল্লেখিত অবস্থা  ৯৫% পারিবারিক চিত্র ।

বর্তমান সমাজে কৌশলে নারীদের উপর অধিকারের নামে চাকরি, বাজার রান্না-বান্নার দায়িত্বের বোঝাগুলো চাপিয়ে দিয়েছে, সরলা নারীরা জানেও না দায়িত্ব কী আর অধিকার কী। অপরিচিত পুরুষের খাবার পরিবেশন, তাদের রুম ঝাড়ু দেয়া, হোটেল আর বিমানে তাদের আপ্যায়ন করা, মার্কেটে মুচকি হাসিতে গ্রাহক আকর্ষণ, অফিসে মিষ্টি হাসির মাধ্যমে অফিসার কে মুগ্ধ করা এগুলো নাকি তাদের অধিকার আর স্বাধীনতা!  বোকারা আবার এটি নিয়ে আন্দোলনও করে।

যাই হোক ইসলাম বলে স্বামী ও স্ত্রী একে অন্যের সহায়ক ও পরিপূরক। উভয়েরই রয়েছে উভয়ের প্রতি বিশেষ দায়িত্ব ও করণীয়। আল্লাহ তাআলা কোরআনুল করিমে স্বামী- স্ত্রী  সম্পর্কের তুলনা করতে গিয়ে বলেন :

 ؕ هنَّ لِبَاسٌ لَّکُمۡ وَ اَنۡتُمۡ لِبَاسٌ لَّہُنّ ؕ

তারা তোমাদের পোষাকস্বরূপ এবং তোমরাও তাদের পোষাকস্বরূপ।’ (সুরা: ২ বাকারা, আয়াত: ১৮৭)

প্রত্যেকে চায় তার পোশাকটাকে সযত্নে রাখতে। খাওয়া দাওয়ায়, চলা- ফেরায় আগলে রাখতে যাতে কোন দাগ না পরে। কখোনো দাগ পরলেও সাথে সাথে ধুয়ে ফেলে। বা লুকিয়ে রাখে।

শরিয়াতে বিয়ের পর স্বামীর অন্যতম দায়িত্ব হলো স্ত্রীকে স্বামীর সামর্থ্য অনুযায়ী স্ত্রীর প্রয়োজন মতো খাদ্য সরবরাহ করা। চাল ডাল মাছ মুরগী কিনে দিলে হবেনা প্রস্তুত করে খাবারের উপযোগী করে দিতে হবে । থ্রি পিসটা শুধু কিনে দিলে হয়না প্রস্তুত করে ব্যবহারের উপযোগী করে দিতে হয় । অর্থাৎ খাবার সরবরাহ করা যেহেতু স্বামীর দায়িত্বে; সুতরাং খাবার প্রস্তুত করা স্ত্রীর দায়িত্ব নয়। এবং শ্বশুর- শ্বাশুরি, স্বামী বা তার আত্মীয়- স্বজনদের খাবার তৈরি শরিয়া কর্তৃক বাধ্য না ।

বাদায়েয়ুস সানায়ের গ্রন্থকার আল্লামা কাসানী এমনটাই বলেন:

ﻭَﻟَﻮْ ﺟَﺎءَ اﻟﺰَّﻭْﺝُ ﺑِﻄَﻌَﺎﻡٍ ﻳَﺤْﺘَﺎﺝُ ﺇﻟَﻰ اﻟﻄَّﺒْﺦِ ﻭَاﻟْﺨَﺒْﺰِ ﻓَﺄَﺑَﺖْ اﻟْﻤَﺮْﺃَﺓُ اﻟﻄَّﺒْﺦَ ﻭَاﻟْﺨَﺒْﺰَ ﻳَﻌْﻨِﻲ ﺑِﺄَﻥْ ﺗَﻄْﺒُﺦَ ﻭَﺗَﺨْﺒِﺰَ ———-(باب النفقة)

যে মেয়েটি বাবা মা সব কিছু ছেড়ে আপনার কাছে এসেছে ,বাবার বাসায় কখোনো রান্নাও করেনি । সে যদি বলে আমার খাবারটা আপনি রান্না করে দিন বা হোটেল হতে এনে দিন ইসলামি শরিয়া মতে আপনি বাধ্য।

অবশ্যই স্বামীর  সংসারে স্ত্রী কাজকর্ম করলে নফল ইবাদতের সওয়াব পাবেন। অস্বচ্ছল ও অভাবী স্বামীর সংসারে স্ত্রী কাজকর্ম করলে স্বামীর উপার্জনে সহায়তা এবং সন্তানদের প্রতি সহযোগিতা করা হবে। এটা তাদের দায়িত্ব নয় করলে সোয়াব পাবেন । হযরত আলী রা. এবং ফাতিমা র. মাঝে রাসূলুল্লাহ সা. বাসার বাহির এবং ভিতরের কাজে বন্টন করে দিয়েছিলেন ।  সংসারে উন্নতির জন্য স্বামী-স্ত্রী একে অন্যকে সহযোগিতা করা উচিত।

যা আপনার দায়িত্বে ছিল আপনার স্ত্রী ভালবেসে নফল হিসেবে করতে গিয়ে কোন ত্রুটি হলে তার উপর চড়াও হওয়া, কটু কথা বলা জুলুম নয় কি ?

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ مَا عَابَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم طَعَامًا قَطّ.

আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:

তিনি বলেন, নবী সা. কখনো কোন খাবারের দোষ-ত্রুটি প্রকাশ করেননি। ( বুখারী, হাদিস নং ৫৪০৯)

সুতরাং আপনার ডিউটি আপনি পালন করুন নতুবা বাবা- মা, স্বজন, এলাকাবাসী কে আজীবনের জন্যে ছেড়ে আসা সরলা নারীটির প্রতি সদয় হোন, সহযোগী হোন। তার কষ্টগুলো কে স্বীকার করুন। তার গুণগুলো কে মূল্যায়ন করুন।

হযরত আলী রা. স্ত্রী কে কিভাবে মুল্যায়ন করেছেন:-

وَكَانَتْ أَحَبَّ أَهْلِهِ إِلَيْهِ وَكَانَتْ عِنْدِي فَجَرَّتْ بِالرَّحَى حَتَّى أَثَّرَتْ بِيَدِهَا وَاسْتَقَتْ بِالْقِرْبَةِ حَتَّى أَثَّرَتْ فِي نَحْرِهَا وَقَمَّتِ الْبَيْتَ حَتَّى اغْبَرَّتْ ثِيَابُهَا وَأَوْقَدَتِ الْقِدْرَ حَتَّى دَكِنَتْ ثِيَابُهَا وَأَصَابَهَا مِنْ ذَلِكَ ضُرٌّ

আলী রা. বলেন: ফাতিমা রা. ছিলেন রাসূলের নিকট তাঁর পরিবারের সর্বাধিক প্রিয় এবং আমি তাকে বিয়ে করেছি। যাতা ঘুরাতে ঘুরাতে তার হাতে, পানির মশক বহন করায় তার কাঁধে দাগ পড়ে যায়; ঘর ঝাড়ু দেয়ায় ও রান্নাঘর পরিষ্কার করায় তার কাপড়ে ময়লা লেগে যায়; এতে ফাতিমাহ্‌র খুব কষ্ট হয়। (সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৫০৬৩)

আল্লাহ তা’আলা সবাই কে বুঝার তৌফিক দান করুন।

আয়াতুল্লাহ রাসেল
মুফতি ও মুহাদ্দিস
জামিয়া গাফুরিয়া ইসলামপুর, মোমেনশাহী।

প্রতিদিনের সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি জানতে ক্লিক করুন এখানে