রানা মাসুদ

Intro

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বিশেষ সংখ্যা
শেখ মুজিব জন্মশতবার্ষিকীর শ্রদ্ধাঞ্জলি

Writter

Intro

রানা মাসুদ

৪ মার্চ, ২০২০ , ১০:৩৯ পূর্বাহ্ণ

রক্তঝরা উত্তাল মার্চঃ রংপুরের দিনগুলো ৩

৪ মার্চ ১৯৭১। ৩ মার্চের ঘটনার পর শহরজুড়ে অস্বাভাবিক থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল। সান্ধ্য আইন যথারীতি আজ সন্ধ্যা থেকে পুনরায় বলবদ থাকবে। শহরের বিভিন্ন স্থানে প্রশাসনের টহল অব্যাহত রয়েছে।

মানুষ জেগেছে পাকিস্তানি হানাদারের বিরুদ্ধে। জেগেছে বীর রংপুরবাসী। প্রশাসনের টহল কিংবা রক্তচক্ষু তাঁদের কি এতো সহজে দমাতে পারে !

এ প্রসঙ্গে কথা বলি বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেনের সাথে। জনাব আকবর একজন বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা। তাঁকে নিয়ে আমার ‘আলোর দ্বীপ ‘সিরিজে বিস্তারিত লেখা আছে। তিনি ৪ মার্চ ১৯৭১-এ রংপুর শহরের অবস্থা নিয়ে জানান,পাকিস্তান প্রশাসনের রক্তচক্ষু দমাতে পারেনি রংপুরের বীর মানুষদের। শহরের বিভিন্ন এলাকায় যে যেভাবে সম্ভব মিছিল করতে থাকে। কোন নির্দিষ্টভাবে বা কেন্দ্রীয়ভাবে নয় এলাকায় এলাকায় স্থানীয়ভাবে সংগঠিত হয়ে এসব মিছিল বের হয়েছিল। কয়েকটি জায়গায় বক্তব্য রাখার খবরও তিনি জানতে পেরেছিলেন।

কথা হলো রংপুরের বিশিষ্ট প্রবীণ সাংবাদিক জনাব আবদুস সাহেদ মন্টু ভাইয়ের সাথে । তিনি তখন পি পি আই- এর রংপুর প্রতিনিধি ছিলেন। মন্টু ভাই জানালেন, ৪ মার্চ রংপুর শহরের বিভিন্ন স্থানে খন্ড খন্ড মিছিল চলছিল। শহরের পরিস্থিতি থমথমে এবং কড়া প্রশাসনিক তৎপরতার পরেও শহরের সি ও বাজার থেকে লালবাগ পর্যন্ত বিভিন্নস্থানে হুট-হাট করে মিছিল হচ্ছিল।

রঙ্গপুর গবেষণা পরিষদ থেকে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধে রঙ্গপুর গ্রন্থের ২৭ পৃষ্ঠায় বলা হয়েছে, ‘ ৩ মার্চের ঘটনার পর শহরের অনেক বিহারী পরিবার উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে। বেশ কয়েকটি পরিবার ইতিমধ্যে সেনানিবাসে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের নিরাপত্তা বিধানের জন্য অবাঙালি সেনা কর্মকর্তারা খুব বিচলিত হয়ে উঠলো। এই কাজে তাদের কারো কারো উদ্বেগ ও ব্যতিব্যস্ততা কখনও কখনও প্রয়োজনের সীমা ছাড়িয়ে গেল। তারা রেজিমেন্টের খাদ্য ভান্ডার থেকে আশ্রিত বিহারী পরিবারগুলোর জন্য রেশন সরবরাহের ব্যবস্থা করলো।

‘( যুদ্ধে যুদ্ধে স্বাধীনতা- মেজর নাসির উদ্দিন)# [লেখক: সাহিত্যিক ও ইতিহাস গবেষক]

রক্তঝরা উত্তাল মার্চঃ রংপুরে এই দিনে

রানা মাসুদ

২ মার্চ, ২০২০ , ২:০৬ অপরাহ্ণ

রক্তঝরা উত্তাল মার্চঃ রংপুরে এই দিনে

মার্চ মাস বাঙালি জাতির এক অবিস্মরণীয় মাস। রক্তঝরা উত্তাল মার্চ। ঐতিহাসিক মার্চ। একটি পতাকার মাস।

উত্তাল রক্তঝরা এই মার্চ মাসে সারাদেশের ন্যায় রংপুরেও ঘটেছিল ঐতিহাসিক বেশকিছু ঘটনাবলী। আমরা অনেকেই বিস্মৃত হয়েছি; অনেকেই জানিনা । এছাড়া এই প্রজন্মের জন্য জানাটাও প্রয়োজন কীভাবে এলো লাল সবুজের পতাকা। রংপুরবাসীর ছিল কতো ঐতিহাসিক অংশগ্রহণ।

১মার্চ ১৯৭১ এক বেতার ঘোষণার মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ৩ মার্চ পাকিস্তান গণপরিষদের পূর্ব ঘোষিত অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করেন। এভাবে পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ বাঙালি জনসাধারণের ১৯৭০ সালের নির্বাচনী রায়কে পদদলিত করা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অর্জন করে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা। ক্ষমতা হস্তান্তর নিয়ে শুরু হয় ষড়যন্ত্র। পাকিস্তান প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান ও পাকিস্তান পিপলস পার্টির প্রধান জুলফিকার আলী ভুট্টো এই ষড়যন্ত্রের প্রধান হোতা।

বাঙালি জাতি এই অন্যায় আদেশ মাথা পেতে নেয়নি। দেশবাসী অধীর আগ্রহে আশা করছিলো বাঙালির প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ক্ষমতায় যাচ্ছেন।

ইয়াহিয়ার কূটকৌশল বুঝে ১ মার্চ সংসদীয় দলের বৈঠক ডেকে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিতের সিদ্ধান্তকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করলেন এবং বঙ্গবন্ধু ২ মার্চ ঢাকায় এবং ৩ মার্চ সারাদেশে হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করলেন। তিনি এরপর কি করণীয় সে ব্যাপারে ৭ মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে জানিয়ে দেবেন বলে জানালেন।

২ মার্চ রংপুরে ১১ দফা আন্দোলনের নেতা- কর্মীরা শহরের সেন্ট্রাল রোডের পাঙ্গা হাউসের ছাদে ( পাঙ্গা হাউস বর্তমানে অবলুপ্ত। এ সংক্রান্ত রিয়াদ আনোয়ার শুভর একটি পোস্ট আছে। বর্তমান গ্রামীণ ফোন সেন্টারের ওখানে ছিল ওই ভবনটি বলে জানা যায়। ) অনেক রাত অব্দি একটা সভা করে। সভায় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি আব্দুর রউফ। সভায় আরো যাঁদের উপস্থিতির কথা বিভিন্ন গ্রন্থ ও লেখায় জানা যায় তাঁরা হলেন সর্বজনাব রংপুর জেলা ছাত্রলীগের সে সময়ের সভাপতি রফিকুল ইসলাম গোলাপ, সাধারণ সম্পাদক মমতাজ জাকির আহমেদ সাবু, ছাত্রনেতা হারেছ উদ্দিন সরকার (মুক্তিযুদ্ধে বীর প্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত এবং পরবর্তীতে ডেপুটি চিফ হুইপ), অলক সরকার, ইলিয়াস আহমেদ, আবুল মনসুর আহমেদ, মাহবুবুল বারী, খন্দকার মুখতার ইলাহী, জিয়াউল হক সাবু, জায়েদুল, নূরুল হাসানসহ অন্যান্য নেতা কর্মীবৃন্দ।

রংপুর জেলা আওয়ামী লীগ পর্যায়ের নেতা সিদ্দিক হোসেন এম সি এ ,শেখ আমজাদ হোসেন, অ্যাডভোকেট এম এ গণি, শাহ আব্দুর রাজ্জাক এম সি এ, হামিদুজ্জামান এম সি এ, গাজী রহমান এম সি এ, তৈয়বুর রহমান, আবুল হোসেন, মীর আনিসুল হক পেয়ারা প্রমুখ নেতৃবৃন্দ রংপুরে গড়ে ওঠা সে সময়ের প্রবল প্রতিরোধ আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন। তাঁরা ছাত্রদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন।

পাঙ্গা হাউসের সভা শেষে ছাত্রলীগ সভাপতি এবং ১১ দফা আন্দোলনের ছাত্রনেতা আব্দুর রউফ জানিয়ে দেন যে, সংগ্রাম ছাড়া সামনে আর কোন পথ খোলা নেই। রংপুর জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ প্রতিরোধ আন্দোলন করার উদ্দেশ্যে গণসংযোগ শুরু করেন। রংপুর শহর জেলার কেন্দ্রবিন্দু হওয়ায় এখান থেকে জেলার অন্যত্র সব সিদ্ধান্ত ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের দিক নির্দেশনা দেয়া হতো।

তখনও কেউ জানতেন না কিংবা ধারণাও করতে পারেননি ৩ মার্চ রংপুরে কি অপেক্ষা করছে।

# তথ্যসূত্রঃ রংপুর জেলার ইতিহাস গ্রন্থে শ্রদ্ধেয় শাহ্ আব্দুর রাজ্জাক ও মুকুল মোস্তাফিজ রচিত ‘মুক্তিযুদ্ধে রংপুর ‘,রঙ্গপুর গবেষণা পরিষদ থেকে প্রকাশিত ‘ মুক্তিযুদ্ধে রঙ্গপুর ‘, ও শ্রদ্ধেয় মুকুল মোস্তাফিজ রচিত ‘ মুক্তিযুদ্ধে রংপুর ‘ গ্রন্থ।

( মুক্তিযুদ্ধের সময় আমি তখন কোলের শিশু। আমাদের গৌরবের এই রক্তঝরা সময়ের ইতিহাস জানার চেষ্টা আমার প্রবল। আমি চাই আমার ও আমাদের সন্তানরা এই গৌরম্বান্মিত ইতিহাস জানুক। এ কারণে আমার এই প্রচেষ্টা। আমি এসব গ্রন্থে যেভাবে ও যাঁদের নাম পেয়েছি সেভাবেই লিখেছি। কারো নাম বাদ গেলে তা আমার পুরোপুরি অজ্ঞতা ও অনিচ্ছায়।)

রক্তঝরা উত্তাল মার্চঃ রংপুরে এই দিনে

Writter