রংপুর অঞ্চলের কবিদের লেখা নিয়ে বিশেষ আয়োজন - রংপুরের কবিতা

ফোনালাপ—৩২

রানা মাসুদ

১১ নভেম্বর, ২০২১ , ১:৫২ অপরাহ্ণ ; 247 Views

— ঢাকা শহরটা আজকাল খুব ফাঁকা হয়ে গেছে যেন মরুভূমি
রাস্তায় ভীষণ ভিড় বাতাসে দূষিত কার্বন বিরামহীন হৈচৈ
এসব কিছুর পরেও শহরটা ফাঁকা যেন উদাসী তেপান্তর
তুমি নেই দিবা তুমি ছাড়া এই শহরটা তালপাকা গরম
তুমি ছাড়া এ শহরের বৃষ্টির জল একঘেয়ে অনাদির কান্না
হ্যালো,হ্যালো শুনছো তুমি? সুদূর নগরে গেছো চলে ঠিকঠাক?
পথে হয়নি কোনও বিচ্যুতি? উড়োজাহাজের গতি ছিল ঠিক?
হাসলে? তোমার গতিও তাই বুড়িগঙ্গা থেকে বঙ্গপোসাগর
লুসাই থেকে হিমালয়,ঢাকা থেকে পরদেশের পরিস্কার রাজপথ।
আচ্ছা তোমাদের ওই শহরের ভালোবাসাগুলো কি বিশুদ্ধ
আমাদের সবুজের মতো,আমাদের কৈশোরের মতো আমাদের স্মৃতির মতো ?
এতো এতো অসুস্থতার মাঝে বলো বিশুদ্ধ ভালোবাসা কী করে দেই তোমায়?

# তুমি থামবে, থামাবে তোমার কথার ঝিকঝিক রেলগাড়ি ?
তুমি কি দেখেছো ক্যাকটাসের কান্না ? বৃষ্টিরও কান্না আছে জানো ?
মেঘের ভেতর গুমোট কষ্ট সাগরের ভেতর নোনা জল চোখের
মিছিলেরও মিছিল আছে দাবির ভেতরও থাকে সমঝোতা।
তবে কেন বোঝ না জীবনের ভেতর আছে অন্য এক জীবন;
সে জীবনের আছে মান-অভিমান, খাঁচার ভেতরও থাকে খাঁচা।
চাইলেই আমি যেতে পারি না মধুর কেন্টিন চাইলেও পারি না দিতে স্লোগান
চাইলেও রিক্সার পিঠে চড়ে বিষণ্ণ বিকেলে পারি না ঘুরতে রাজপথে।
এখন কয়টা বাজে ? লাঞ্চ করেছো ? তোমার ছেলের পরীক্ষা চলছে আজ ?

—তুমি চলে গেলে এও তো এক পরীক্ষা। এতো পরীক্ষা কেন জীবনের অলিন্দে ?
প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকে মধ্যযুগ পেরিয়ে আধুনিক কালেও
দানিউব থেকে গঙ্গা, ত্রিস্রোতা থেকে ব্রহ্মপুত্র, কামরূপ থেকে রংপুর ;
শিশুকাল থেকে যৌবন বেকার থেকে কর্মী ভূমি থেকে সমাধিস্থল,
এই যে হতাশা এও তো এক পরীক্ষা সফলতার চোরকাঁটা হয়ে।

# কফি খাচ্ছি বুঝতে পারছো কোথায় আছি বসে ?
কাঠের ডেকটায় বসে অদূরে সফেদ বরফের উঠোন
উঠোনের উপর তোমার অস্তিত্বের জানান পেয়ে রুগ্ন গাড়িটা
ওটার টক্কর খাওয়া আর আমাদের জীবনের টক্কর যেন একাকার।
তুমি যাও ‘নর্থ এন্ডে’ বসে কফি খাও ফেনিল অনিল এক্সপ্রেসো কফি
আর বসে বসে ভাবো জারুল শাড়িতে পাশে আমিও আছি সাথে।

— আপাতত তপ্ত সড়কে গরমের উষ্ণ আলিঙ্গন মেখে দেখছি কালো মেঘ,
আজ বৃষ্টির সাথে হেঁটে যেতে চাই সুখ-অসুখের বাগান দেখতে,
আজ কবিতার সাথে কথোপকথনে ছুটি দিতে চাই হতাশা,
আজ বিবাদের দেয়াল ভুলে মানবিক মানুষ হতে চাই নিঃশব্দে,
আজ কল্পনার ফানুসে হেঁটে যেতে চাই প্রান্ত থেকে তেপান্তর।

# তুমি থাকো তোমার ফানুস আর তেপান্তর নিয়ে আমি ফোন রাখলাম,
হয়তো আবার কোনোদিন কোনো এক পথে দেখা হবে দু’জনার।#

 

(বি.দ্র. — চিহ্ন পুরুষ চরিত্রের এবং # চিহ্ন নারী চরিত্রের)

মন্তব্য করুন